নরসিংদী শিলমান্দী ভাড়া নিয়ে পুকুরে মাছ চাষের পর গ্যাস দিয়ে লক্ষ টাকার মাছ নিধনের অভিযোগ

স্টাফ রিপোর্টস: নরসিংদী শীলমান্দী মাছিমপুর বিলপাড়া একটি পুকুর ভাড়া নেয় চুক্তিভিত্তিক মোঃ মতিউর রহমান মৃধার কাছ হতে মোঃ জুয়েল ভূঁইয়া তিন বছরের চুক্তিতে ভাড়া নেয়,বছরে ১২ লক্ষ টাকা হারে দুই বছরের মাথায় বাকি এক বছরে টাকা পরিশোধ করতে হবে এবং লাভের ১০% টাকা মালিককে দিতে হবে এবং পুকুরে মাছ ধরবে ৫ ফুট পানি রেখে বড় মাছ ধরবে, পোনা মাছ ধরতে পারবেনা । এছাড়াও পুকুরের পাড় সংস্কার করতে মালিককে ৫০,০০০হাজার টাকা প্রতি বছরে দিতে হবে। এইসব চুক্তিভিক্তি মতিউর রহমান মৃধা, মোঃ জুয়েল ভুইয়া এর কাছে ভাড়া দেন পুকুরটি বলে জানান ভিকটিম। দুই বছরের ভাড়া পর্যাক্রমে পরিশোধ করলেও চার লক্ষ টাকার একটি চেক ও নয় লক্ষ টাকার একটি চেক পরিশোধ করেননি ব্যাংকে গেলে এই চেকে টাকা পাওয়া যায়নি এ ব্যাপারে চেক ডিজঅনার মামলার প্রস্তুতি চলছে । দুই বছরের ১মাস থাকতেই আগামী বছর অর্থাৎ তৃতীয় বছর ভাড়া নিবে না বলে জুয়েল ভূঁইয়া জানান, এতে প্রথমে মতিউর মৃধা রাজি না হলেও পরবর্তীতে তাঁর বড় ভাই প্রিন্সিপাল মশিউর রহমান মৃধা ও গ্রামের মুরুব্বিদের মাধ্যমে একটি সমাধান করা হয়েছিল ভাড়াটিয়ার সাথে এতে জাল দিয়ে বড় মাছ ধরে চলে যাবে। কিন্তু সে রাতের অন্ধকারে পোনা মাছের জাল ফেলে লক্ষ লক্ষ টাকার পোনামাছ মেরে ফেলে। এবং পুকুরে গ্যাস দিয়ে লক্ষ টাকার মাছ মেরে ফেলে বলে জানান পুকুর মালিক মতিউর রহমান মৃধা। পুকুর মালিক মতিউর রহমান মৃধা ও এলাকার মুরুব্বিরা মাছ মারা এবং বাকি টাকা কবে দিবে এ কথা জিজ্ঞাসা করলে মোঃ জুয়েল ভূঁইয়া তাদের প্রতি রাগান্বিত হয় বলে এসব মাছ আমি মারিনি আমি বাকি টাকা আমার কাছে টাকা হলে দিবো আবার বলে আমার কাছে টাকা পাওনা না এসব কথা বলার পর মতিউর রহমান মৃধা ও জুয়েল এর মধ্যে ১৯/০৫/২১ইং তারিখে কথা কাটাকাটি হয এবং মোঃ জুয়েল ভূঁইয়া অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে চলে যায়।মাছ গুলি মারার কারনে পুকুর মালিক মতিউর রহমান মৃধা নরসিংদী মৎস্য অধিদপ্তরের একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন। এতে করে সাহেপ্রতাপ এলাকার মুরুব্বীরা জুয়েল ভুঁইয়ার প্রতি রাগান্বিত হয়। পরবর্তীতে ২০/০৫/২১ ইং তারিখে সাহেপ্রতাপ নিবেদন ক্লাবে জুয়েল ভুইয়াকে ডেকে এনে এসব বিযয়ে তাকে জিজ্ঞাসা করলে সে উপস্থিত মুরব্বিদের সাথে বেয়াদবি করে এতে মুরুব্বীরে তার প্রতি রাগানিত হয় এবং তাকে দুই একটি চর থাপ্পর মেরে তার আত্মীয়র জিম্মায় ছেড়ে দেওয়া হয়। পরবর্তীতে বিষয়টির সমাধান করা হবে বলে । উক্ত ঘটনাকে কেন্দ্র করে জুয়েল ভুইয়ার স্ত্রী রিপা বেগম নরসিংদী মডেল থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন। মিথ্যা অভিযোগ হওয়ায় নরসিংদী থানা পুলিশ এটি আমলে নেয়নি বলে থানা পুলিশ সূত্রে জানা যায়। ভিকটিম পরিবার সহ এলাকাবাসী এই প্রতারক জুয়েল এর বিরুদ্ধে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে ন্যায় বিচার দাবি করেন।

এই ধরনের আরো খবর